তৃতীয় কন্যার জন্য মিলবে ২১ হাজার টাকা অনুদান

0
556
pegnete

গত কয়েক বছরে ছেলে মেয়ের অনুপাত অনেকটাই কমেছে ভারতে। কন্যা সন্তান বা ভ্রুণ হত্যা কমানোর জন্য “আপকি বেটি, হামারি বেটি” স্কিম চালু করেছিল হরিয়ানা সরকার। এই প্রকল্পের আওতায় প্রথমে BPLও SC-দের অনুদান দেওয়ার কথা ঘোষণা করা হয় ৷ প্রথম কন্যা সন্তানের ক্ষেত্রে এই অনুদান মিলবে বলে ঘোষমা করা হয় ৷ এরপর জাতি ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে এই একই অনুদান প্রযোজ্য করা হয় দ্বিতীয় কন্যাসন্তানের জন্যেও। এবার এই প্রকল্পের আওতায় তৃতীয় কন্যা সন্তানের জন্যেও মিলবে ২১,০০০ টাকা অনুদান ৷ সম্প্রতি এমনই ঘোষণা করা হয় সরকারের তরফে ৷

সরকারের তরফে জানানো হয়েছে, ২৪ অগাস্ট ২০১৫ সালের পর যে পরিবারে তৃতীয় কন্যা সন্তান জন্ম নিয়েছে তাদেক এককালীন ২১ হাজার টাকা অনুদান দেওয়া হবে ৷ শহর ও গ্রামাঞ্চলে দু’ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য হবে এই স্কিম।

রাজ্যের স্বর্ণ জয়ন্তী বর্ষ উপলক্ষে ২০১৫-তে এই “আপকি বেটি, হামারি বেটি” প্রকল্পটি চালু করা হয়েছিল ৷ সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে, এখনও পর্যন্ত বহু পরিবারের কন্যাসন্তানকে মেনে নেওয়া হয় না ৷ বেশিরভাগ সময় তারা গর্ভবতী মহিলার লিঙ্গ নির্ধারণ করে থাকে। মেয়ে সন্তান থাকলে গর্ভপাত করতে বাধ্য করা হয় মহিলাদের ৷ গর্ভস্থ শিশুটি মেয়ে না ছেলে তা আগে থেকেই তারা জেনে নেওয়ার চেষ্টা করে ৷ এর মূল কারণ হল ছেলে সন্তানের চাহিদা ৷ যাদের প্রথম সন্তান মেয়ে তাদের মধ্যে এই প্রবণতা বেশি দেখা যায় ৷ এর জেরে ছেলেদের থেকে মেয়েদের সংখ্যা অনেকটাই কমতে থাকে রাজ্যে।

২০১১ সালে জনগণনা অনুসারে হরিয়ানায় প্রত্যেক হাজার ছেলের অনুপাতে ৮৩৪ জন মেয়ে জন্মেছে। তবে এবছর তা ৯০০ হয়েছে৷ সরকারের তরফে দাবি করা হয়েছে “আপকি বেটি, হামারি বেটি” প্রকল্পের জন্যে এই উন্নতি দেখা গিয়েছে ৷ ছেলে ও মেয়েদের অনুপাত কমিয়ে ৯৩০ করায় এখন তাদের মূল উদ্দেশ্য বলে জানানো হয়েছে সরকারের তরফে।

LEAVE A REPLY