বিশ্বকাপ নিয়ে পরিকল্পনা জানালেন ইনজামাম

0
374
inzamam-ul-haq pakistan

আগামী ২০১৯ বিশ্বকাপকে সামনে রেখে এখন থেকেই দল গঠনের চিন্তাভাবনা করা উচিত বলে মনে করেন পাকিস্তানের সাবেক অধিনায়ক ও প্রধান নির্বাচক ইনজামাম-উল-হক। বিশ্বকাপের পরবর্তী আসর ইংল্যান্ড ও ওয়েলসে ২০১৯ সালের ৩০ মে থেকে ১৫ জুন পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হবে। এই নিয়ে পঞ্চমবারের মত ক্রিকেটের সবচেয়ে মর্যাদাকর এই টুর্নামেন্ট ইংল্যান্ডে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে।

লাহোরে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে ইনজামাম বলেন, বিশ্বকাপ আমাদের মাথায় আছে। ২০১৯ সালে যখন টুর্নামেন্টটি অনুষ্ঠিত হবে ওই সময় দলে কি পরিমান খেলোয়াড় থাকবে সেটা এখন থেকেই আমরা বিবেচনা করছি।

যদিও শারজায় নিউজিল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়ার কাছে টানা ৬টি টেস্টে পরাজিত হওয়ার পরেও দলে আমূল কোন পরিবর্তনের বিষয়টি উড়িয়ে দিয়েছেন ইনজামাম। ওয়ানডে ক্রিকেটেও পাকিস্তানের সাম্প্রতিক ফর্ম মোটেই আশানুরূপ নয়। বর্তমান বিশ্ব র‌্যাঙ্কিংয়ে তারা ৮ নম্বরে আছে। সাবেক এই অধিনায়ক বলেন, ‘অবশ্যই দল যখন ভালো করে না তখন সবাই আশাহত হয়, এর মধ্যে সাবেক খেলোয়াড়রাও আছেন। কিন্তু তার অর্থ এই নয় যে রাতারাতি আমরা দল পরিবর্তিত করে দিব। আমাদের মূল লক্ষ্য হলো পরবর্তী বিশ্বকাপ নিয়ে কাজ করা।

বর্তমান অধিনায়ক মিসবাহ-উল-হক প্রসঙ্গে ১২০ টেস্ট খেলা অভিজ্ঞ ইনজামাম বলেন সিনিয়র খেলোয়াড়দের জন্য পাকিস্তান ক্রিকেটে নিজস্ব একটি স্থান আছে, এ নিয়ে কোন সন্দেহ নেই। এখানে মিসবাহের অবদান অস্বীকার করার কিছু নেই। সবাইকেই ক্যারিয়ারের একটি পর্যায়ে এসে বিদায় নিতে হবে, এটাই জীবন। অধিনায়কত্ব বিষয়টি নিয়ে বলতে গেলে একটি কথাই বলবো এটা আমার এখতিয়ারে নেই। এটা সম্পূর্ণভাবে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের সিদ্ধান্ত।

৪৬ বছর বয়সী ইনজামাম স্পষ্টভাবে জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচক সবসময়ই সবার কথা শুনে অধিনায়ক ও প্রধান কোচের দৃষ্টিভঙ্গিকে প্রাধান্য দেন। কারণ এদের দ্বারাই দল পরিচালিত হয়। তবে ইনজামাম একটি বিষয়ে উপর গুরুত্ব দিয়েছেন- ঘরোয়া অবকাঠামোকে আরো শক্তিশালী করা। একইসাথে আরো ভাল পিচ তৈরি করা যাতে করে তরুণ খেলোয়াড়রা জাতীয় দলের জন্য নিজেদের আরো বেশি যথার্থ করে গড়ে তুলতে পারে।

ইনজামাম ইঙ্গিত দিয়েছেন বর্তমানে কিউরেটর হিসেবে নিজেদের ক্যারিয়ার গড়ে তোলার জন্য তিনজন সাবেক টেস্ট খেলোয়াড় ট্রেনিংরত রয়েছে। আশা করা হচ্ছে, ঘরোয়া ক্রিকেটে পিচ প্রস্তুতিতে তারা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারবেন। যেহেতু পাকিস্তানী খেলোয়াড়রা বেশিরভাগ ম্যাচই ঘরের মাঠে খেলে থাকে সে কারণে এই বিষয়টির দিকে বেশি মনোযোগী হতে হবে।

ইনজামাম আরো মনে করেন তিন ধরনের ফর্মেটে খেলোয়াড়দের স্ট্রাইক রেট আরো ভালো হওয়াটা জরুরি। এক্ষেত্রে তিনি অস্ট্রেলিয়ায় দুই তরুণ খেলোয়াড় শারজিল খান ও বাবর আজমের ব্যাটিংয়ের প্রশংসা করেছেন।

LEAVE A REPLY