হৃতিক-কঙ্গনার আইনি লড়াইয়ের অবসান

0
455

riktik-koknokaএরকম দৃশ্যে আর দেখা যাবে কি তাদের? বলিউড এই বছর শুরুই হয়েছে বিতর্ক ও বিচ্ছেদের মাধ্যমে। এর মধ্যে অন্যতম এক বিষয় ছিল হৃতিক রোশন ও কঙ্গনা রানাউতের বিচ্ছেদ ও আইনি লড়াই। সেই বিতর্কের অবসান হল অবশেষে। মুম্বাই পুলিশের ফরেন্সিক ডিপার্টমেন্ট বিষয়টির নিষ্পত্তির রিপোর্ট জমা দিয়েছে।

কঙ্গনা দাবি করেছিলেন, হৃতিক তাকে ইমেল পাঠাতেন। অন্যদিকে হৃতিকের অভিযোগ ছিল সেগুলি কোনও প্রতারক তৈরি করেছে। ফরেন্সিক ডিপার্টমেন্ট হৃতিকের মেইল থেকে পাঠানো সেই ইমেলগুলো পরীক্ষা করে। কিন্তু কোনও সিদ্ধান্তে আসতে পারেনি। তাই সাইবার পুলিশ মামলাটি বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নেয়।

ক্রাইম ব্রাঞ্চের জয়েন্ট কমিশনার অব পুলিশ জানিয়েছেন, ‘আমরা মেইল আইডিতে কিছু পাইনি। কারণ সার্ভারটি আমেরিকার। তাই অ্যাকাউন্টটি কে ব্যবহার করত, তা বলা মুশকিল। তবু যেটুকু প্রমাণ আছে, তার উপর ভিত্তি করে আমরা সিদ্ধান্তে আসতে চাইছি।’ একই ইস্যু নিয়ে একজন সিনিয়র পুলিশ অফিসার জানিয়েছেন, ‘আমেরিকায় যে সার্ভার আছে, একমাত্র তার তথ্যই আমাদের সাহায্য করতে পারে।’

কঙ্গনার আইনজীবী জানিয়েছেন, তিনি মামলা বন্ধ হয়ে যাওয়ায় খুব একটা আশ্চর্য হননি। তিনি বলেছেন, ‘তদন্তের পর পুলিশ যা পেয়েছে তার উপর ভিত্তি করে নিষ্পত্তির রিপোর্ট বের করেছে। এর মানে হৃতিক রোশনের দাবি মতো তারা প্রতারককে চিহ্নিত করতে পারেনি। কিন্তু কঙ্গনা সবসময় সবকিছু মেনে চলেছেন। সেখানে কোন প্রতারণা নেই।’

প্রসঙ্গত, হৃতিক রোশন ও কঙ্গনা রানাউতের মধ্যে এই সমস্যার সূত্রপাত হয় এই বছরের জানুয়ারি মাসে। কঙ্গনা হৃতিককে ‘প্রাক্তন’ বলার পর টুইটারে বিস্ফোরক মন্তব্য করেন হৃতিক। সেখান থেকে পুলিশ, সাইবার ক্রাইম ব্রাঞ্চ পর্যন্ত এগোয় ঘটনাটি। একে অপরকে আইনি নোটিসও পাঠান তারা। হৃতিক কঙ্গনাকে সর্বসমক্ষে ক্ষমা চাইতে বলেন এবং এও জানান যে তিনি কোনওদিন কঙ্গনার সঙ্গে সম্পর্কে ছিলেন না। হৃতিকের মন্তব্য অস্বীকার করেন কঙ্গনা। তিনিও নিজের সমর্থনে অনেক কথাই প্রকাশ করেন।

LEAVE A REPLY