৩০ বছর বয়সের আগেই অর্থ সম্পর্কে যে বিষয়গুলো জানা দরকার

0
444

বয়স যখন বিশের কোঠায় থাকে তখন সকলেই অর্থ সম্পর্কিত কিছু না কিছু ভুল করেন। এমনকি সবচেয়ে ধনী লোকরাও তাদের জীবনের ২০ এর দশকে এ থেকে রেহাই পাননি।
হাতে গোনা কয়েকজন স্বনির্মিত মিলিয়নিয়র এবং বিলিয়য়িয়র, সিইও এবং উদ্যোক্তা ও বেস্টসেলার লেখককে জিজ্ঞেস করা হয়েছিল তারা ২০ এর কোঠায় অর্থ সম্পর্কিত কোন বিষয়গুলো জানতে চাইতেন।
তারা যা বলেছেন:
১. বিলম্বিত পরিতৃপ্তিকরণ এর ধারণা শেখা, ফোকাস ব্র্যান্ডস এর প্রেসিডেন্ট, ক্যাট কোল
সঞ্চয় ঘিরে আরো নীতিমালা এবং চর্চা জানা। আর আমি কীভাবে আমার অর্থ ব্যয় করছি সে সম্পর্কে সচেতনতা। আর বিলম্বিত পরিতৃপ্তিকরণের ধারণা।
২. বিপদের সময় ব্যয়ের জন্য নগদ অর্থ জমা রাখা, জন পল ডেজোরিয়া, জন পল মিচেল সিস্টেম এবং প্যাট্রন টাকিলার সহপ্রতিষ্ঠাতা:
“বিনিয়োগ বা নতুন কম্পানি শুরুর আগে একটি বিষয়ে নিশ্চিত হয়ে নিন যে আপনার কাছে ছয়মাস পর্যন্ত বিল আদায় এবং অন্যান্য প্রত্যাশিত এবং অপ্রত্যাশিত খরচের জন্য যথেষ্ট পরিমাণ অর্থ সঞ্চিত আছে। ”
৩. ক্রেডিট কার্ড ব্যবস্থাপনা শেখা, মার্ক কুবান, বিলিয়নিয়র, বিনিয়োগকারী:
“আমি যদি জানতাম যে, ক্রেডিট কার্ড হলো সবচেয়ে খারাপ বিনিয়োগ তাহলে খুব ভালো হত। আর আমি পুঁজি বাজার বিশেষজ্ঞ হতে পারলেও অনেক খুশি হতাম। ”
৪. চাকরির চেয়েও দক্ষতা বেশি মূল্যবান, টিম ফেরিস, অ্যাঞ্জেল বিনিয়োগকারী, “দ্য ফোর আওয়ার ওয়ার্ক উইক” এর বেস্টসেলার লেখক।
“আপনার বয়স যখন বিশের কোঠায় থাকবে তখন উপার্জন নয় বরং শেখার ওপর গুরুত্ব দিন। সরাসরি নামকরা লোকদের অধীনে বা সঙ্গে কাজ করুন এবং দক্ষতা অর্জন করুন। ”
৫. ভবিষ্যতের জন্য সঞ্চয় করুন, সারা ব্ল্যাকলি, স্প্যাংক্স এর প্রতিষ্ঠাতা:
ভবিষ্যতের জন্য অর্থ সঞ্চয় করাটা গুরুত্বপূর্ণ। আর সঞ্চিত অর্থ অতি জরুরি প্রয়োজন ছাড়া স্পর্শ করবেন না।

৬. আপনার অর্থ ব্যবস্থাপনার জন্য আপনার একটি সুপরিকল্পনা দরকার, অ্যালেক্সা ভন টোবেল, লার্ন ভেস্ট ডটকমের প্রতিষ্ঠাতা এবং সিইও, “ফিনান্সিয়ালি ফিয়ারলেস” এর লেখক।
৭. টাকার পেছনে দৌঁড়ানোর চেয়ে বরং এমন কিছু করুন যেটা আপনি ভালোবাসেন, ব্লেক মাইকোস্কি, টিওএমএস এর প্রতিষ্ঠাতা।
“আমি দেখেছি, যারা তাদের বিশ এর কোঠায় টাকার পেছনে না ছুটে বরং পছন্দের কাজের পেছনে সময় ব্যয় করেছেন তারাই সবচেয়ে বেশি সফল হয়েছেন। ”

৮. ক্রেডিট কার্ড থেকে সাবধান, জোয়ানে ব্র্যাডফোর্ড, এসওএফআই এর সিওও।
“আমি যখন প্রথম চাকরি করি তখন আমার কম্পানি থেকে আমাকে ২০% ছাড়ে ক্রেডিট কার্ড দেওয়া হয়। কিন্তু শর্ত ছিল শুধু তাদের কার্ডই ব্যবহার করতে হবে। আর সুদের হারও ছিল উচ্চ- ২০ শতাংশের মতো। আমি যদি তখন ক্রেডিট কার্ড ঋণের প্রকৃত মূল্যটা জানতাম তাহলে ভালো হত। ”

৯. কর্মজীবনে উন্নতি এনে দেবে এমন দক্ষতা অর্জন করুন, নেইল ব্লুমেনথাল, ওয়ারবি পার্কার এর সহপ্রতিষ্ঠাতা এবং সহ সিইও।
১০. সকল ক্রেডিট কার্ড প্রস্তাব গ্রহণ করবেন না, ফারনুশ টোরাবি, ব্যক্তিগত অর্থায়ন বিশেষজ্ঞ, বেস্ট সেলার লেখক, ডেইলি পডকাস্ট “সো মানি” এর হোস্ট।

১১. নিজের ওপর বাজি ধরুন, ডেভিড বাখ, ফিনিশরিচমিডিয়া এর প্রতিষ্ঠাতা এবং বেস্ট সেলার লেখক।
“বড় কোনো উদ্যোগ গ্রহণ করতে গেলে লোকে হয়তো নিরুৎসাহিত করবে। কিন্তু সফল হতে হলে নিজের ওপর বাজি ধরতে হবে। নিজেকেও আমি এ কথাই বলতাম। ”

১২. বিনিয়োগের ক্ষমতা বুঝুন, কেভিন ক্লিয়ারি, ক্লিফ বার
অ্যান্ড কম্পানির সিইও।
“২০ থেকে ৩০ বছর বয়সের মধ্যেই বিনিয়োগের ক্ষমতা বুঝার সবচেয়ে উত্তম সময়। ”

১৩. অর্থ মানে স্বাধীনতা, সোফিয়া অ্যামোরুসো, ন্যাস্টি গ্যাল এর প্রতিষ্ঠাতা। “#গার্লসবস” এর লেখক।
“নিজের জীবনের অভিজ্ঞতা থেকে দেখেছি অর্থ স্বাধীনতা এনে দেয়। আপনি যদি আপনার অর্থায়ন নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন তাহলে আপনাকে আপনার অপছন্দের চাকরি, স্থান বা সম্পর্কের ফাঁদের আটকা পড়ে থাকতে হবে না। ”

১৪. অর্থ কাউকে সুখি করতে পারে না, ম্যাট ম্যালোনি, গ্রাবহাব এর সিইও।
“আপনার ধারণার চেয়েও অনেক অল্প উপার্জনে আপনি একটি পরিপূর্ণ জীবন যাপন করতে পারবেন। সুতরাং শুধু অর্থই কাউকে সুখ এনে দেয় না। ”
১৫. আপনি কতটা ব্যয় করেন তা জানুন, জেন হেম্যান, রেন্ট দ্য রানওয়ে এর সহপ্রতিষ্ঠাতা এবং সিইও।
“২০ এর কোঠায় আমি অনেক অর্থ অপচয় করতাম। কিন্তু আরো যৌক্তিক উপায়ে আমার অর্থ খরচ করা উচিৎ ছিল। ”
১৬. কর্মজীবনে বিনিয়োগ করুন, অর্থ  আপনাতেই আসবে, অ্যাডাম ন্যাশ, ওয়েলথফ্রন্ট এর প্রেসিডেন্ট এবং সিইও।

১৭. বিশ এর কোঠায় আপনার কাছে এখন যত অল্প অর্থই থাকুক না কেন তার সুব্যবস্থাপনা শিখুন, ডেবি ফিল্ডস, মেসার্স ফিল্ডস এর প্রতিষ্ঠাতা।
“বিশ এর কোঠাতেই যদি সম্পদ সৃষ্টির ধারণাটি বুঝতাম তাহলে অারো সম্পদশালি হতাম।

LEAVE A REPLY